সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়েছে কোভিড-১৯। চীনের উহান প্রদেশে প্রথম যাত্রা শুরু হয় করোনা ভাইরাস। www.worldometer.info হতে জানা যায় আজ (১৬/০৪/২০২০) পর্যন্ত  বিশ্বে আক্রান্তের সংখ্যা ২০,৯২,০০৮ জন, মৃত্যু হয়েছে ১,৩৫,২৩০জন এবং সুস্থ্য হয়েছেন-৫,১৬,৯৭৫জন। এখন চীন কিছুটা স্বস্তির হলেও যুক্তরাষ্ট্র(আক্রান্ত-৬,৪৪,৩৪৮), স্পেন (আক্রান্ত-১,৮০,৬৫৯),ইটালী (আক্রান্ত-১,৬৫,১৫৫), ফ্রান্স (আক্রান্ত-১,৪৭,৮৬৩), জার্মানী (আক্রান্ত-১৩৪,৭৫৩), যুক্তরাজ্য(আক্রান্ত-৯৮,৪৭৬), ইরান (আক্রান্ত-৭৬,৩৮৯), তুর্কী (আক্রান্ত-৬৯,৩৯২), ভারত (আক্রান্ত-১২,৪৫৬), পাকিস্তান (আক্রান্ত-৬,৫০৫),বাংলাদেশ (আক্রান্ত-১,৫৭২)সহ বিশ্বে ২১০টি দেশ করোনা ভাইরাসের কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত।

মুসলিমদের পবিত্র নগরী মক্কা-মদিনায় এখন আর লোকজনের সমাগম হয় না। সৌদি আরবের অনেক স্থানে কার্ফিও জারি করা হয়েছে। জুমার নামাজে বড় জামাত করা স্তগিত করেছে অনেক মুসলিম রাষ্ট্র। শুধু মসজিদ নয় বিশ্বে অন্যান্য ধর্মাবলীর সমাবেশ বা সম্মিলিত প্রার্থনা বন্ধ হয়েছে যথা চার্চ, সিনাগগ, মন্দির । যুক্তরাষ্ট্রে অসংখ্য সিনাগগ বন্ধ হয়ে আছে৷ এই ক’দিন আগে ইহুদিদের পুরিম উৎসব কোনমতে পালিত হল৷ অথচ এটি কার্নিভালের মত মহাসমারোহে পালন করেন তারা৷

 

বাংলাদেশে মার্চ/২০২০ এর প্রথম দিকে বিদ্যালয়গুলোতে সমাবেশ বন্ধ করেছে। প্রথম দিকে বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসে রোগি আছে বলে জল্পনা-কল্পনা চলছে। বিশেষ করে বাংলাদেশ বিমান বন্দর দিয়ে যাত্রী প্রবেশের সময় কোয়ারান্টাইন ঠিকমত মানা হচ্ছে না। সর্বশেষ Institute of Epidemiology, Disease Control and Research (IEDCR). রোগতত্ত্ব , রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট গত ০৮/০৩/২০২০ তারিখে ঘোষণা করলেন বাংলাদেশে তিনজন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগি সনাক্ত করেছে।

গত ১৬ মার্চ ২০২০ তারিখে বাংলাদেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কিছুদিনের বন্ধ ঘোষণা করে সরকার। সেইসাথে যাবতীয় সমাবেশ, রাজনৈতিক সভা, সমাবেশ মাহফিল, ইত্যাদিও স্তগিত করে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করার পর কিছু কোচিং সেন্টার বা শিক্ষক প্রাইভেট পড়িয়েছিল পরে প্রশাসনের হস্তগত কারণে তা পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়। এপ্রিল/২০২০ এ বাংলাদেশের ইসলামি ফাউন্ডেশনের আলেমদের মতামতানুসারে মসজিদগুলোতে ৫/১০ জনের মধ্যে জামাত নামাজ আদায় করার ঘোষণা দেন। এখন মসজিদগুলোতে ৫/১০ জনের বেশি লোকের জামাত হয় না

বাংলাদেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কিছুদিনের ছুটির পর আবার বর্ধিত করেছে। প্রতিষ্ঠানের এই বর্ধিত সময় পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে আরো বাড়াতে পারে। মোট কথা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দীর্ঘমেয়াদি বন্ধ থাকতে পারে। এই পরিপেক্ষিতে মাউশি (মাধ্যমিক উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর বাংলাদেশ সংসদের মাধ্যমে ২০মিনিটের করে কিছু ক্লাশ সম্প্রচার করছে। কিন্তু শিক্ষকগণ পুরোপুরি বেকার হয়ে নিজ গৃহে অবস্থান করছে।

শিক্ষকগণ বাড়ি বাড়ি গিয়ে ছাত্র/ছাত্রীর পড়ার খোঁজ খবর নেয়া সম্ভব নয়। কারণে করোনা ভাইরাস ছোয়াছে রোগ। তাই বিশ্বসাস্থ্য সংস্থা নিরাপদ দূরত্বে (সামাজিক দূরত্ব/শারীরিক দূরত্ব/তিন ফুট) চলার কথা বলে দিয়েছে। অনেক ছাত্র/ছাত্রী ঠিকমত টেলিভিশনের ক্লাশগুলো দেখাও সম্ভব নয় কারণ অনেক জায়গায় টেলিভিশনের এই সুবিধা নাও থাকতে পারে।

এইমুহুর্তে শিক্ষকগণ কি করবেন। রোটারিয়ান মহসিন স্যার জানালেন, “নিজ নিজ পরিবার পরিজন নিয়ে লকডাউনে থাকাই উত্তম কাজ বলে মনে করি। সামর্থ্য অনুযায়ী আমাদের আত্মীয় স্বজন এবং পাড়া প্রতিবেশীদের সহায়তা করা যেতে পারে”।

বাতাকান্দি সরকার সাহেব আলি আবুল হোসেন মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের মামুন মিয়া স্যার বলেন, “নিয়মিত সংসদ টেলিভিশনের ক্লাশ দেখা এবং শিক্ষার্থীরা ক্লাশগুলো দেখে বাড়ির কাজ করছে কি না তা টেলিফোনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীকে নিশ্চত করা”।

কুমিল্লার জনতা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক পলাশকান্তি মজুমদার স্যার বলেন, “এখন স্মার্ট শিক্ষকগণ শিক্ষক বাতায়ন এবং মুক্তপাঠে ভাল সময় দিবেন, একদিন এই মহামারি চলে যাবে আর তখন অনলাইনের জ্ঞান ক্লাশে ব্যবহার করবেন”।

স্কুল এম্বাসেডর  আব্দুল মালিক রাজু বলেন, “শিক্ষকগণ আশে পাশের লোকজনকে করোনা ভাইরাস সম্পর্কে সচেতন করবেন এবং লক্ষ্য রাখবেন সরকারি চাল চুরি যাতে না হয়”।

ইস্পাহানী স্কুল এন্ড কলেজের মহিম চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, “অনলাইনের সোশাল মিডিয়ার গুজবের সঠিক ব্যাখ্যা দিয়ে সমাজকে গুজবমুক্ত করতে শিক্ষকের ভূমিকা অনস্বীকার্য; কারণ সমাজে শিক্ষকগণের কথা দেববানীর মত মানে”।

সংরাইশ ছালেহা বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষক আজিম খান রাজু বলেন, “এটি জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক সমস্যা তাই আমাদের উচিত হবে সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক সকলকার্য পরিচালনায় সহায়তা করা”।

গণ উদ্যোগ বালিকা মহাবিদ্যালয়ের সহকারি প্রধান শিক্ষক মো. মিজানুর রহমান বলেন, “আমরা নিজের এই ভাইরাস সম্পর্কে জানব এবং অন্যদেরকে জানাব”।

প্রধান শিক্ষক মোকতল হোসেন বলেন, “আমাদের প্রতিটি বিদ্যালয়েই শিক্ষার্থীদের মোবাইল নাম্বার থাকে।সেই নাম্বারগুলো প্রধান শিক্ষক কয়েকজন শিক্ষককে দিবেন; শিক্ষার্থীদের পাঠক্রমের খোঁজ খবর রাখতে বলবেন এবং প্রধান শিক্ষক নিজে তা তদারকি করবেন”।

 

মোহাম্মদ শাহজামান শুভ

সহকারি শিক্ষক

বাতাকান্দি সরকার সাহেব আলি আবুল হোসেন মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়

www.shuvoh.com

Comments are closed.