নেশা যার রক্তদান

নেশা যার রক্তদান

Shahzaman Shuvoh No Comments

১৯৯৩ সালের ১৬ডিসেম্বর কুমিল্লায় বিজয় মেলাতে মো. মুকবুল হোসেন প্রথম রক্ত দেবার চেষ্টা করে কিন্তু  রক্ত দিতে পারিনি কারণ তার বয়স হয়নি বলে ডাক্তার বিদায় করে দিলেন। দুঃখ ভারাক্রান্ত মন নিয়ে সেদিন বাড়ি এসেছিলেন।  মনটা খুব খারাপ ছিল। তখন তার আম্মা আমাকে সান্তনা দিয়ে বলেন আগামী বছর দিতে পারবি এক বছর দেখতে দেখতে কেটে যাবে। তার পর থেকে অপেক্ষার পালা কখন সেই দিন টি আসবে। অবশেষে ১৯৯৪ সালের ১৫ আগষ্ট জাতির পিতা বঙ্গ বন্ধু শেখমুজিবর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকিতে কুমিল্লা রূপালি চত্তরে রক্তদান করার ফরম পুরণ করলেন। তখনও ডাক্তার তাকে বললেন, “আপনি দিতে পারবেন না”। কমপক্ষে ১৭ বছর লাগবে। কিন্তু মুকবুল নাছোড় বান্ধা।  এক বড়ভাইকে রক্তদান করার আকুতি মিনতি বুঝালেন, সেই ভাই অবশেষে  ডাক্তার কে রাজি করালেন এবং প্রথম রক্তদান করলেন। Read More

সর্বজনীন ইদে হচ্ছে না কোলাকুলি ও করমর্দন

Shahzaman Shuvoh No Comments

আজ (২৪/০৫/২০২০) ৩০তম রোজায় আছি। আজকের সূর্য ডুবলে ইফতার করে রোজা ভাঙ্গবো। আগামীকাল ইদুল ফিতর। মুসলিমি ইতিহাসে সবচেয়ে বড় আনন্দের দিন ইদুল ফিতর। আরবিঈদশব্দের অর্থ আনন্দ। হৃদয় থেকে উৎসারিত যে আবেগউচ্ছ্বাস সেটাকেই আনন্দ বলা হয়। আনন্দ অনাবিল স্বতঃস্ফূর্ত। ইসলামী পরিভাষায়ঈদশব্দের বিশেষ তাৎপর্য রয়েছে। ঈদের আনন্দ এমন এক ধরনের আনন্দ যা শুধু ব্যক্তির মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়। সমাজের প্রতিটি ব্যক্তির মধ্যে যখন ঈদের আনন্দ উৎসারিত হয়, তখন তা আর ব্যক্তিগত আনন্দ থাকে না সমষ্টিগত আনন্দে পরিণত হয়। তাই ঈদের আনন্দ প্রতিটি মুমিন মুসলিমের যেমন আনন্দ, তেমনি তা সমগ্র মুসলিম মিল্লাতের এক অবিভাজ্য সমষ্টিগত আনন্দ। আনন্দে ব্যক্তি মানুষ থেকে সমাজের প্রতিটি মানুষই সম্পৃক্ত হয়। আনন্দে সমাজের সকলকে সম্পৃক্তিকরণে ইসলামের ভ্রাতৃত্বপূর্ণ, সাম্যবাদী, উদার, সহনশীল মানবিক আদর্শের নির্দেশনাও এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। রমযান মাসে যাকাত, ফিত্রা, সদ্কা ইত্যাদি বিতরণের মাধ্যমে সুবিধাবঞ্চিত দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে অর্থনৈতিকভাবে সাহায্য করা হয়, যাতে তারা দারিদ্র্যের অভিশাপ থেকে মুক্ত হয়ে স্বাবলম্বী জীবনযাপন করতে পারে এবং অন্যদের সাথে ঈদের আনন্দে মন খুলে শরীক হতে পারে। ঈদ উৎসবের এটা এক সর্বজনীন দিক। ফলে ঈদের আনন্দ কোন বিশেষ ব্যক্তি, গোষ্ঠী বা সুবিধাভোগীদের জন্য নয়, আনন্দ সর্বজনীন, সর্বব্যাপী পরিমল নিষ্কলুষ আনন্দ কিন্তু এবছর তেমন আনন্দ নেই। কারণ কভিড১৯ রোগে মানুষ দিন দিন মারা যাচ্ছে। মারা যাওয়ার চেয়ে ভয়ঙ্কর হলো করোনা ভাইরাস ছোয়াছে। ছোয়াছে হবার কারণে করোনা ভাইরাসের রোগ কভিড১৯ একটি মারাত্মক রোগ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এটা অনেক আগেই মহামারি হিসেবে ঘোষণা করেছে। আজ দুপুর আড়াইটার দিকে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে অনলাইনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দৈনন্দিন স্বাস্থ্য বুলেটিনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক প্রফেসর ডা. নাসিমা সুলতানা জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ২৮ জন প্রাণ হারিয়েছেন। যা একদিনে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ মৃত্যু। নিয়ে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৪৮০এ। একই সময়ে ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন আরও হাজার ৫৩২ জন। সব মিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৩১ হাজার ৭৩৭ জনে। তিনি ৪৭টি ল্যাবে নমুনা পরীক্ষার তথ্য তুলে ধরে জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাস শনাক্তে আরও হাজার ১৮৪ টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় হাজার ৯০৮টি। পর্যন্ত পরীক্ষা করা হয়েছে লাখ ৪৩ হাজার ৫৮৩ জনের। সারা পৃথিবীর আজ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে ৫৪,২৭,৫৫৫জন, সুস্থ্য হয়েছে ২২,৫৪,৪৪০জন এবং মৃত্যু হয়েছে ,৪৪,৪১৭জন Read More

রোজা সুস্থ্য থাকার আবেদন

Shahzaman Shuvoh No Comments

আমার প্রজন্ম এইরূপ রোজার দিন আর কোন দিন দেখেনি। রোজার ইফতার রোজার তারাবি ও রোজার সেহরির যে একটা আমাজে ছিল তা আজ নেই। সবাই স্তব্ধ। পৃথিবী সকল মানুষই মহামারিতে কবলিত। গতকালের (২৪/০৪/২০২০) রিপোর্টানুসারে করোনা ভাইরাসে আক্রমনে আক্রান্ত প্রায় ২৮,৩০,২৪৯জন। শুধু আমেরিকাতেই আক্রান্ত ৯,২৫,০৩৮জন। আমাদের দক্ষিন এশিয়ার মধ্যে ইন্ডিয়ায় আক্রান্ত ২৪,৪৪৭জন, পাকিস্তান-১১,৯৪০জন, বাংলাদেশ ৪,৬৮৯জন, মায়ানমার-১৪৫জন, নেপাল-৪৯জন,ভূটান-৭জন, মালদ্বীপ-১২৯জন। Read More

মাজারগুলো খোলতে পারে ত্রাণের ভান্ডার

Shahzaman Shuvoh one comments

উইকিপিডিয়ানুসারে, মাজার একটি আরবী শব্দ, যা এখন শুধু বাংলাতেই ব্যবহৃত হয়। শব্দটি ফারসী দরগাহ শব্দের প্রতিশব্দ। এর ধাতুগত অর্থ ‘যিয়ারতের স্থান’। মাজার বলতে সাধারণত আওলিয়া-দরবেশগণের সমাধিস্থলকে বোঝায়। Read More

তিতাস উপজেলার বর্তমান করোনা পরিস্থিতি এবং আমার কিছু কথা -নাজমুল করিম ফারুক

Shahzaman Shuvoh No Comments

১. আজ ১৬ এপ্রিল (বৃহস্পতিবার)। বাংলাদেশের করোনা পরিস্থিতি তথ্য মতে, আক্রান্তের সংখ্যা ১ হাজার ৫৭২জন। যাদের মধ্যে মৃত্যুবরণ করেছে ৬০ জন। গতকাল ১৫ এপ্রিল (বুধবার) পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ১ হাজার ২৩১জন। মৃত্যুবরণ করেছিল ৫০ জন। পরিসংখ্যান অনুযায়ী নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা যত বাড়ানো হচ্ছে, আক্রান্তের সংখ্যাও তত বাড়ছে। বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা। Read More